বুজ্জি, বয়স ২৮ তার শশুর বাড়ির লোকজন আর দুই মেয়েকে নিয়ে থাকে। সে কখনো স্মার্টফোন ব্যবহার করেনি কিন্তু একজন ইন্টানেট সাথী হয়ে অন্যদের সাহায্য করতে সে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিল। সে পাঠ নিয়েছিল এবং এখন সে আমাদের অন্যতম সেরা প্রশিক্ষক।

বুজ্জি তার প্রতিবেশি, নাগলক্ষী নামের একজনকে ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য প্রশিক্ষন দিয়েছিল যে ছিল একজন সীবনকারী। নাগলক্ষী তার সদ্য লাভ করা দক্ষতার সাহায্যে সাড়ি ব্লাউসের ডিজাইন সম্পর্কে অনুসন্ধান করে শিখে নেয় কিভাবে আরো সূক্ষ্মতার সাথে পোশাক সেলাই করা যায়। নাগলক্ষী অনলাইনে শাড়ির দরদাম জেনে নেয় এবং ঈখন সে তার হস্তকৃত শিল্প আগের থেকে তিনগুন দামে বিক্রি করতে পারছে। অতিরিক্ত টাকা দিয়ে সে তার মেয়েদের এলাকার সেরা স্কুলে পড়তে পাঠাচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কাহিনী

সবকিছু দেখুন
/images/stories/thumbs/sarita.jpg

সরিতা

তার গ্রামবাসীদের ফলন বাড়াবার জন্য সহায়তা করা।
/images/stories/thumbs/phoolwati.jpg

ফুলওয়ালি

মেয়েদের উত্তম শিক্ষা পেতে সহায়তা করা।
/images/stories/thumbs/chetna.jpg

চেতনা

রোগের আরোগ্যের জন্য গ্রামের অন্যদের সহায়তা করা।